পরিবহন চাদাবাজীতে অতিষ্ঠ চালক-শ্রমিকদের প্রতিবাদ।

প্রকাশ: ২০২০-০৬-১৬ ০২:২৫:০২ 93 Views

নারায়ণগঞ্জ বন্দরে পরিবহন চাদাবাজদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে চালক ও মালিকেরা।বাধ্য হয়ে সকাল থেকে সকল প্রকার সিএনজি, ইজিবাইক, অটোরিকশা ও ব্যাটারি চালিত রিকশার চালক-হেলপার সহ শতাধিক পরিবহন শ্রমিক জড়ো হয়ে প্রতিবাদ জানায়।পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

উপজেলার মদনপুর বাস স্ট্যন্ডে সোমবার (১৫ জুন) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এসব ক্ষুদ্র পরিবহন বন্ধ রেখে চাদাবাজদের বিরুদ্ধে সড়কে অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানায় পরিবহন শ্রমিকেরা।পরে পুলিশের আশ্বাসে পুনরায় স্বাভাবিক হয় যান চলাচল।

ললাটির অটোরিকশা চালক দেলোয়ার হোসেন ও উত্তর চানপুরের ব্যাটারি চালিত রিকশা চালক মোঃ বাদল জানান,এমনিতে ৩ মাসের বেশি সময় ধরে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন হয়ে পড়েছে হতদরিদ্র মানুষেরা।লকডাউনের কারণে মানবেতর জীবনযাপন করছে পরিবহন শ্রমিকেরা।তারওপর চাদাবাজীতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে খেটে খাওয়া শ্রমিকরা।সোমবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে ৪ টি মোটরসাইকেল নিয়ে চিহ্নিত পরিবহন চাদাবাজ আমীর বাহিনীর সদস্য মাসুদ,রহিম,খোরশেদ, মামুন, সামসুল হক সহ আরো কয়েকজন এসে গাড়ি প্রতি ১০০/১৫০/২০০ টাকা করে চাদা দাবী করে। না দিলে কোনো গাড়ি চলবেনা এবং মারধর করার হুমকি দেয়। ভয়ে বেশ কয়েকজন চালক তাদেরকে চাহিদামতো চাদা দিতে বাধ্য হয়। একপর্যায়ে শতাধিক চালক-শ্রমিক সংগঠিত হয়ে চাদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে এবং ক্ষুদ্র পরিবহন বন্ধ করে দেয়।অবস্থা বেগতিক দেখে সটকে পড়ে ওই চাদাবাজ সিন্ডিকেটের সদস্যরা। খবর পেয়ে বেলা ১১ টার দিকে ধামগড় ফাড়ীর পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ইন্সপেক্টর মোঃ আজিজুল হক বলেন, সোনারগাঁও ললাটি স্ট্যান্ডের একজন অটো চালককে মারধর করে অপর একজন চালক। এনিয়ে দু’গ্রপের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। মদনপুরে মারামারি হতে পারে, এমন আশকায় কিছু সময়ের জন্য শ্রমিকরা ক্ষুদ্র পরিবহন বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। তবে কোনো পরিবহন চাদাবাজকে ছাড় দেওয়া হবে না জানিয়ে তিনি আরো বলেন, উপরের নির্দেশনা রয়েছে। কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে
যেকোনো চাদাবাজ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, মদনপুর স্ট্যান্ড থেকে ললাটি পর্যন্ত প্রতিদিন ৩ শতাধিক সিএনজি, ইজিবাইক, অটোরিকশা, ব্যাটারি চালিত রিকশা চলাচল করে।এসব ক্ষুদ্র পরিবহন থেকে ১০০-৩০০ টাকা করে চাদা দিতে হয় পরিবহন চাদাবাজ সিন্ডিকেটের সদস্য এবং কতিপয় কর্মকর্তাদের।মাসে চাদাবাজীর পরিমাণ দাড়ায় কয়েক লাখ টাকা।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক চালক ও মালিক জানান, বিভিন্ন নামে গড়ে ওঠা শ্রমিক সংগঠন,রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের অসাধু কর্রমকর্তাদের সমন্বয়ে দীর্ঘদিন যাবত আদায় করা হচ্ছে এসব চাদার টাকা।পরিবহন চাদাবাজসিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে সরকার।তারপরও থেমে নেই তাদের অপকর্ম।আরো কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহণ করার দাবী জানিয়ে স্থানীয়রা জানান, র‍্যাব ও পুলিশের সাড়াশি অভিযান চালিয়ে এসব চাদাবাজ সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম বন্ধ করতে হবে।

ট্যাগ :



চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মোঃ আব্দুল আজিজ
ডিএমডি : মোঃ আরমান তারেক

বার্তা কক্ষ :

ঢাকা অফিস : ৬ষ্ঠ তলা,আইভরীকৃষ্ণচূড়া,৩/১ ই পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
চট্টগ্রাম অফিস : সায়মা আবুল স্কয়ার,বড়পুল,হালিশহর,চট্টগ্রাম।
ফোন : ০১৮১৭-৭৪৩৩৮৭
মেইল : channelkornofuli.org@gmail.com