দীর্ঘ ৫ মাস পর বাবা-মা’র কাছে হারিয়ে যাওয়া সুমাইয়া

প্রকাশ: ২০২০-০৬-০৯ ০৪:৫৪:৫৬ 228 Views

নারায়নগঞ্জ শহরের খানপুরে একটি বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করত ৮ বছরের সুমাইয়া।প্রায় ৫ মাস আগে চিপস কিনতে দোকানে যায়,আর বাড়ি ফিরেনি সুমাইয়া।রাস্তা হারিয়ে পায়ে হেঁটে কাচপুর ব্রিজ পাড় হয়ে বন্দর মদনপুর এলাকায় দাদার মার্কেটের সামনে চলে আসে।স্পষ্ট করে সম্পূর্ণ নাম ঠিকানা না বলতে পারায় উপস্থিত কেউ শিশুটিকে চিনতে পারেনি। এসময় কান্নাকাটি করতে থাকলে জামাল উদ্দিন টেক্সটাইলের শ্রমিক নাসরিন আক্তার মানবতার তারনায় শিশুটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে রাখেন।পরে নাসরিন দম্পতি স্থানীয় চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে জানান।অবিভাবকদের সন্ধানের জন্য মাইকিং করে এবং বিভিন্নভাবে চেষ্টা অব্যাহত রাখেন। দীর্ঘ ৩ মাসের বেশি সময় পরে ৫ জুন সকালে শিশু সুমাইয়াকে স্থানীয় থানাপুলিশের কাছে নিয়ে যান নাসরিন দম্পতি।তখন উপস্থিত সংবাদকর্মীরা বিষয়টি জানতে পারেন এবং বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ফলাও করে প্রকাশ করেন।সন্ধান মেলে হারিয়ে যাওয়া সুমাইয়ার অবিভাবকের।ফিরে গেছে বাবা-মা’র কোলে।এসময় আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন উপস্থিত দীর্ঘদিন শিশুটিকে মাতৃস্নেহে লালনপালন করা নাসরিন দম্পতি, পুলিশ ও সাংবাদিক সহ সবাই।
সুমাইয়ার হাড়িয়ে যাওয়ার ঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়। পাশাপাশি পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়।

টেক্সটাইল শ্রমিক নাসরীন আক্তার মানবিকতার পরিচয় দিয়ে শিশু সুমাইয়াকে লালনপালন করায় কৃতজ্ঞতা জানান শিশুর বাবা-মা।
সোমবার(৮ জুন) সুমাইয়া বাবা মায়ের কোলে ফিরে যায়।হারিয়ে যাওয়া মেয়েকে ফিরে পেয়ে আনন্দিত মা।পুলিশ, সাংবাদিক ও মানবিক নাসরিন দম্পত্তিকে ধন্যবাদ জানান এবং কৃতজ্ঞতা জানান।
কামতাল তদন্তকেন্দ্রের এসআই মোঃআবুল কাশেম আইনী প্রক্রিয়া শেষে শিশু সুমাইয়াকে তার বাবা মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেন।এসময় স্থানীয় সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগ :



চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মোঃ আব্দুল আজিজ
ডিএমডি : মোঃ আরমান তারেক

বার্তা কক্ষ :

ঢাকা অফিস : ৬ষ্ঠ তলা,আইভরীকৃষ্ণচূড়া,৩/১ ই পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
চট্টগ্রাম অফিস : সায়মা আবুল স্কয়ার,বড়পুল,হালিশহর,চট্টগ্রাম।
ফোন : ০১৮১৭-৭৪৩৩৮৭
মেইল : channelkornofuli.org@gmail.com