নরসিংদীতে পাপিয়ার ‘কেএমসি বাহিনী’

প্রকাশ: ২০২০-০৩-০৭ ০৪:১৮:২২ 198 Views

রাজনীতির কথা বলে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে দলে ভেড়ানো হতো। তারপর সেখান থেকে ‘কেএমসি বাহিনী’। যাদের হাতে হাতে ছিল আলাদা ট্যাটু। কাজ ছিল ত্রাস আর সন্ত্রাস। এটা নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগ থেকে বহিষ্কৃত পাপিয়ার কেএমসি বাহিনীর কথা। বহু নির্যাতন আর অপকর্ম করে বেড়ানো এ বাহিনীর কথা স্থানীয়দের মুখে মুখে থাকলেও, এসবের কোনো তথ্য নেই নরসিংদীর পুলিশের কাছে।

নানা অপকমের্র অভিযোগে র‌্যাবের হাতে শামীমা নূর পাপিয়ার আটকের পর, সবার মুখে মুখে এখন ‘কেএমসি বাহিনী’র নাম। এরপর কেএমসি বাহিনীর খোঁজে অনুসন্ধানে নামে সময় সংবাদ। অনুসন্ধানে জানা যায়, মূলত রাজনীতির সুবাদে পাপিয়ার সঙ্গে যোগ দেয়াদের একটি অংশ থেকেই বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে গঠন করা হয় কেএমসি বাহিনী। এ বাহিনীর প্রত্যেক সদস্যের হাতে ছিল কেএমসি লেখা আলাদা ট্যাটু। যার পুরো নাম খাজা মঈনুদ্দিন চিশতী। নাম ও পরিচয় গোপন রাখার শর্তে কেএমসি বাহিনীর দু’জন সদস্যের সঙ্গে কথা হয় সময় সংবাদের।

তারা জানান, এ বাহিনীর সদস্যদের জিম্মি করে সুমন ও পাপিয়া নানা অপর্কম করাতো।

কেএমসি বাহিনীর এক সদস্য বলেন, কাউকে টাকার লোভ দেখাতো। কাউকে নেশা। যে যেভাবে রিলেটেড। যাকে যেভাবে দলে ভেড়ানো যায়। আমাদের বিভিন্ন মিছিল-রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে নিয়ে যেত।

স্থানীয়রা বলছেন, পাপিয়ার কেএমসি বাহিনী এলাকায় মাদক আর ত্রাসের রাজত্ব গড়ে তুলেছিল।

এলাকাবাসী বলেন, পাপিয়া কেএমসি বাহিনী দিয়ে বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকাণ্ড এবং ত্রাসের রাজ্যে পরিণত করেছিলেন। তবে এ বাহিনীর সদস্যরা যখন দেখছে তাদের লিডার ধরা খাইছে তখন তারা গা ঢাকা দিয়েছে। তবে সুযোগ পেলে তারা আবার তাদের পুরানো কর্মকাণ্ডে ফিরতে পারে।

এদিকে তাদের কর্মকাণ্ডে বিব্রত জেলা আওয়ামী লীগ। যাদের ছত্রছায়ায় তারা গড়ে উঠেছে তাদেরও বিচার হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা।

নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জিএম তালেব হোসেন বলেন, যাদের ছত্র ছায়ায় এ সমস্ত কর্মকাণ্ড করেছে। তাদের খুঁজে বের করে বিচার হওয়া উচিত।

তবে নরসিংদী পুলিশের দাবি, পাপিয়া ও সুমনের এ বাহিনীর সর্ম্পকে কোনো তথ্য নেই তাদের কাছে।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইন বলেন, পাপিয়ার কেএমসি বাহিনীর কোনো কার্যক্রম নরসিংদীতে নেই। এ বিষয়ে কোনো অভিযোগও আমাদের কাছে এখনও আসেনি।

সময় সংবাদের সাথে কথা বলা কেএমসির দু’জন সদস্যের তথ্য মতে, গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে কেএমসি বাহিনী গড়ে তোলে পাপিয়া দম্পত্তি। এর সদস্য সংখ্যা প্রায় অর্ধশত

Share this:

ট্যাগ :



চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মোঃ আব্দুল আজিজ
ডিএমডি : মোঃ আরমান তারেক

বার্তা কক্ষ :

ঢাকা অফিস : ৬ষ্ঠ তলা,আইভরীকৃষ্ণচূড়া,৩/১ ই পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
চট্টগ্রাম অফিস : সায়মা আবুল স্কয়ার,বড়পুল,হালিশহর,চট্টগ্রাম।
ফোন : ০১৮১৭-৭৪৩৩৮৭
মেইল : channelkornofuli.org@gmail.com