চীনের সরকারি ছুটিতে সঙ্কটে বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প

প্রকাশ: ২০২০-০২-১২ ০৪:৫৯:০৫ 264 Views

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত চীনের সরকারি বন্ধের সময়-সীমা বাড়তে থাকায় বাংলাদেশে কাঁচামাল সরবরাহে দীর্ঘসূত্রিতা সৃষ্টি হচ্ছে। তৃতীয়বারের মতো বাড়ানো হয়েছে চীনের সরকারি বন্ধ। এদিকে আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের বাধ্যবাধকতকায় চীনকে এড়িয়ে গার্মেন্টস সেক্টরের কাঁচামাল সংগ্রহে বিকল্প দেশের সন্ধান পাচ্ছে না বাংলাদেশ। ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ গড়ে না তুলে চীনের ওপর নির্ভরশীল থাকায় কাঁচামাল সংগ্রহে চরম সঙ্কটে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। তবে চীনের এ সঙ্কট মাথায় রেখে ভবিষ্যতের জন্য এখনই পরিকল্পনা নেয়ার কথা বলছেন বিশ্লেষকরা।

চায়না নববর্ষের জন্য ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ছিল চীনের সরকারি বন্ধ। কিন্তু করোনা ভাইরাস জটিলতা শুরু হওয়ায় ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রথম দফা, ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দ্বিতীয় দফায় সরকারি বন্ধ বাড়ানো হয়। সর্বশেষ ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তৃতীয় দফা বন্ধ ঘোষণা করতে যাচ্ছে চীন সরকার।

অথচ বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পের কাঁচামাল সবরাহের ক্ষেত্রে বড় ধরনের ভূমিকা রেখে আসছে চীন। গত চার দশক ধরে বিলিয়ন বিলিয়ন মার্কিন ডলার রফতানি আয় হলেও বাংলাদেশে গড়ে উঠেনি ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ শিল্প প্রতিষ্ঠান। চীন থেকেই কাপড়সহ সব ধরনের কাঁচামাল কিনে আনছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা।

বিজিএমইএ ভাইস প্রেসিডেন্ট এ এম চৌধুরী সেলিম বলেন, বড় ধরনের বাধার জন্য এ ইন্টারেস্ট রেটে কেউ ইনভেস্ট করতে চায় না।

পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ বলেন, সরকারকে অনুরোধ করেছি যে ব্যাকওয়ার্ড লিংকের বিশেষ করে টেক্সটাইল খাতে আরো বাড়ানোর জন্য।

বর্তমানে রাজধানী ঢাকা এবং বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পুরোদমে চালু রয়েছে প্রায় ৫ হাজার গার্মেন্টস কারখানা। চীন থেকে আনা কাঁচামাল দিয়ে আন্ডারগার্মেন্টস, টি শার্ট, প্যান্ট, জার্সি, ভারি জ্যাকেটসহ প্রায় একশো রকমের পণ্য তৈরি করে বিদেশে রফতানি করে বাংলাদেশ। চীনে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার পর তৈরি পোশাক শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত বাংলাদেশের মতো প্রতিটি দেশকেই সঙ্কটে পড়তে হয়েছে। আবার বিকল্প দেশেরও সন্ধান মিলছে না।

গার্মেন্টস ব্যবসায়ীদের মতে, বিশ্বের ৫শ’র বেশি নামকরা বায়ার প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ থেকে পণ্য কিনছে। আর ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ গড়ে না ওঠার পেছনে তাদের কিছু কৌশলও কাজ করে। কারণ বায়ার প্রতিষ্ঠানের নির্দেশনা অনুযায়ী কাঁচামাল কিনতে হয় চীনের প্রতিষ্ঠাগুলো থেকে।

বিজিএমইএ পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ বলেন, চেইন যদি ভেঙে যায় তাহলে অল্টারনেটিভ মার্কেট খুঁজে সাকসেস হওয়ার সুযোগ নেই।

গার্মেন্টস শিল্প কারখানাগুলোতে বর্তমানে ৪০ লাখ শ্রমিক নিয়োজিত থাকলেও এ সেক্টরের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে দু’কোটির বেশি মানুষ।

ট্যাগ :



চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক : মোঃ আব্দুল আজিজ
ডিএমডি : মোঃ আরমান তারেক

বার্তা কক্ষ :

ঢাকা অফিস : ৬ষ্ঠ তলা,আইভরীকৃষ্ণচূড়া,৩/১ ই পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
চট্টগ্রাম অফিস : সায়মা আবুল স্কয়ার,বড়পুল,হালিশহর,চট্টগ্রাম।
ফোন : ০১৮১৭-৭৪৩৩৮৭
মেইল : channelkornofuli.org@gmail.com